Header Ads

Header ADS

স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরে ঘুমানোর অনেক উপকার, ইসলামিক মতামত

 


স্বামী সর্বদা  স্ত্রীর ডান সাইডে ঘুমাবে বা অবস্থান করবে- কমিউনিটিতে এমনটিই প্রচলিত আছে। এমনকি হাঁটার সময়, যানবাহনে চলাচলের টাইম কিংবা ঘুমানোসহ সব সময় স্বামী তার স্ত্রীর ডান সাইডে থাকবে। স্ত্রীর ঘুমানো বা চলাফেরা সম্মন্ধে ইসলামের দিকনির্দেশনা-

না, বউ ঘুমানোর সময় জামাইয়ের ডান সাইডে ঘুমাবে এমন কোনো নীতি ইসলামে নেই। তবে সব অনেক ভালো কাজই ডান দিক হতে আরম্ভ করার জন্য হয়। এটি সুন্নতও বটে। কিন্তু স্বামী-স্ত্রীর ঘুমানো,  চলাফেরা পক্ষান্তরে অবস্থানের টাইম বাধ্যতামূলকভাবে স্বামীকে ডান পাশে থাকতে হবে, এটা সঠিক নয়। ইসলামে এ সম্মন্ধে সুস্পষ্ট কোনো দিকনির্দেশনাও নেই।


স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরে ঘুমানোর অনেক উপকার:

রাতে প্রিয়জনকে জড়িয়ে ধরে ঘুমানোর হ্যাবিট অনেকের মধ্যে থাকলেও, কেউ কেউ আবার ব্যাপারটা দৃষ্টিপাত না করে যান। তবে জানেন কি, রাতে সঙ্গীকে জড়িয়ে ধরে ঘুমালে চমৎকার নিদ্রা হয়।

একই সাথে সারে নানা ধরনের রোগ। আধুনিক এক তত্ত্বানুসন্ধানে এমনই ইনফরমেশন উঠে এসেছে। লন্ডনের নর্থামব্রিয়া ইউনিভার্সিটি কর্তৃক পরিচালিত হয় গবেষণাটি।গবেষণায় উঠে এসেছে, রাত্রিতে একা ঘুমালে মাথায় নানা রকম ধ্যান আসে। এ ছাড়াও মোবাইল ফোন ব্যবহারেই অনেকটা সময় চলে যায়। ফলে নিদ্রা আসতে দেরি হয়। আবার ঘুমালেও নানা কারণে ঘুম অগাধ হয় না।

অন্যদিকে সঙ্গী পাশে থাকলে অনেকটাই নিশ্চিন্ত অনুভব করেন সবাই। সঙ্গীর বুকে মাথা রেখে কিছু কথা বললেও মানসিক দুঃখ অনেকটাই মুছে হয়ে যায়।

গবেষকরা দেখেন, রাতে সঙ্গীকে জড়িয়ে ধরে ঘুমালে ৫ ধরনের হরমোন নির্গমনকৃত হয়। যেমন- অক্সিটোসিন (এটি হচ্ছে প্রেমের হরমোন যা আপনাকে সন্তুষ্ট রাখে), সেরোটোনিন (এই হরমোন সুস্থতা ও খুশিতে অবদান রাখে)।

নরপাইনফ্রাইন (এটি ঘুম নিয়ন্ত্রণ ও মানসিক চাপের ভারসাম্য বজায় রাখে), ভ্যাসোপ্রেসিন (ঘুমের গুণমান বাড়ায় ও কর্টিসল কমায়) ও প্রোল্যাক্টিন (এই হরমোন ইমিউন সিস্টেম উন্নত করে ও নিদ্রা অগাধ করে)

এই গবেষণার শ্রেষ্ঠ বায়োহ্যাকার হেলথ অপ্টিমাইজিংয়ের মনোবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ, উদ্যোক্তা ও জগৎ কথক দল গ্রে বলেন, ‘এসব হরমোন মানসিক অবসাদ দূর করে। ফলে মন ও মেজাজ এমনিতেই ভালো থাকে। এইজন্য স্বাভাবিক কারণেই নিদ্রা সুন্দর হয় ও নানারকম রোগের ঝুঁকিও কমে।’

গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, সঙ্গীকে পাশে নিয়ে ঘুমালে কার্ডিওভাসকুলার রোগ হওয়ার ঝুঁকিও কমে। এ ছাড়াও অক্সিটোসিন হরমোন রক্তচাপ কন্ট্রোলে রাখতেও সাহায্য করে।

আরো পড়ুন :

  1. স্বামীর কি করনীয় স্ত্রী অবাধ্য হলে? ইসলামিক মতামত কি?
  2. স্বামী  অক্ষম হলে স্ত্রীর কি করনীয় ?
  3. ইসলামিক মতে বিয়েতে অভিভাবকের অনুমোতি নেওয়ার প্রয়োজন আছে না নেই ?

সারাদিনের কর্মব্যস্ততায় মাথা যন্ত্রণা, কষ্ট প্রভৃতি সমস্যা দূর করতে সুপ্রিম মানুষটিকে বেশি ভালোবাসুন। রিসার্চ বলছে, মাথা যন্ত্রণার প্রকোপ কমাতে চুম্বন বেশ কার্যকরী।

গ্রে উল্লেখ করেছেন, ‘সঙ্গী পাশে নিয়ে ঘুমালে নিরাশা ও উৎকণ্ঠা কমে। যা মানসিক স্বাস্থ্য বেশ ভালো রাখে। এই অভ্যাস আপনাকে দীর্ঘজীবী করতেও সহযোগিতা করতে পারে!’

উত্তর ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ৫৯ মহিলার উপর এই গভেষণাটি পরিচালিত হয়। গবেষকরা অংশগ্রহণকারীদের অক্সিটোসিনের মাত্রা ও রক্তচাপ রেগুলার পরীক্ষা করেন।

তারা সঙ্গীকে কতবার জড়িয়ে ধরছেন কিংবা তাদের সঙ্গে রাতেরবেলা কতদিন ঘুমাচ্ছেন সব বিষয়ের ইনফরমেশন বিবেচনা করেন বিশেষজ্ঞরা।


এর ফলাফল কি ছিল? বিশেষজ্ঞরা দেখেন, যাদের অক্সিটোসিনের মাত্রা সবচেয়ে বেশি তাদের রক্তচাপ সবচেয়ে কম ছিল।

এ ছাড়াও স্বজনের সংস্পর্শে অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিগুলোতে কর্টিসল উদ্ভাবন অফ করার জন্য ইশারা পাঠায়। এর ফলে মানসিক চাপ  ও সুন্দর নিদ্রা হয়।

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.